শিক্ষিত ৯৩% বামপন্থী কেরালায় অন্তঃসত্ত্বা হাতিকে হত্যা

শিক্ষিত ৯৩% বামপন্থী কেরালায় অন্তঃসত্ত্বা হাতিকে হত্যা,sribangla
শিক্ষিত ৯৩% বামপন্থী কেরালায় অন্তঃসত্ত্বা হাতিকে হত্যা

শিক্ষিত হলেই যে মানুষ হওয়া যায় না সেটা প্রমাণ করলো ৯৩% শিক্ষিত খেতাবধারী ভারতের কেরালা রাজ্য। কিছুদিন ধরে অনলাইনে একটি খবর ঘোরাঘুরি করছে খবরটি হলো একটি হাতিকে আনারসের ভিতর বারুদ মিশ্রিত করে খাইয়ে হত্যা করেছে গ্রামবাসী। ভারতের কেরল রাজ্যর কেরল  সাইলেন্স ভ্যালি ন্যাশনাল পার্ক থেকে একটি হাঁতি এসেছিল খাদ্যের সন্ধানে কেরলের একটা গ্রামে।গ্রামবাসীরা হাতিটিকে সে সময় একটা আনারস খেতে দেয়।এই অবলা হাতি প্রানীটি সেই আনারাস খেয়েও ফেলে।খাওয়ার পরেই সে বুঝতে পারে সৃষ্টির সেরা জীবকে বিশ্বাস করে সে কি ভুল করেছে।আনারসটির ভিতরে বাজি, বারুদ দিয়ে ভর্তি করা ছিলো।তাই আনারসটি খাওয়ার সাথে সাথেই অসহ্য জ্বলনে রক্তাক্ত হয়ে উঠে তার সারা শরীর।বারুদ গুলো বিস্ফারিত হতে থাকে তার সুর সহো পুরো শরীরে।
ফরেস্ট অফিসার মোহন বলেন যে,ডাক্তার যখন হাতিটির ময়না তদন্ত করেন তখন জানান,১৫ বছর বয়সী হাতিটি অন্তঃসত্ত্বা ছিলো। এবং তার পেটের ভিতর বেড়ে উঠছিল একটি হাতি।
কাপা গলায় আরো জানান,হাতিটির মধ্যে একটা সিক্স সেন্স কাজ করেছিল।সে জানতো তার মৃত্যু আসন্ন। যন্ত্রণায় জ্বলছিল সারা দেহ।এ অবস্থায় সে তার সন্তানের কথা ভেবে চলে যায় নদীর মাঝে,জলের মধ্যে যাতে করে সেই রক্তাক্ত যায়গায় পোকামাকড় না বসতে পারে,যতখন প্রাণ ছিলো ততখন চেষ্টা চালিয়ে গেছে যাতে তার সন্তানের একটু হলেও কষ্ট কম হয়।আর শেষ অবদি সে ওই মাঝ নদীতেই প্রাণ ত্যাগ করে। সৃষ্টির সেরা জীব এর কাছে মাথা নত করে হাতিটি জলের ভিতর মৃত্যুবরণ করে।
হাতিটি অসহ্য যন্ত্রণা নিয়ে সারা গ্রাম ছুটোছুটি করে।মানুষ তাকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিলেও সে মানুষের কোন ক্ষতি করে নি।মাঝ নদীতে গিয়ে চুপকরে দাড়িয়েছিলো।গ্রামের ভিতরে হাতিটি কোনোভাবেই কোনো ক্ষতি না করে ও সে নিজে বুঝতে পেরে জলাশয় গিয়ে প্রাণ বাঁচানোর জন্য চেষ্টা করে। সে কোনভাবেই গ্রামের গাছপালা বা মানুষের এমন কি বাড়ি ঘরের কোন ক্ষতি করেনি।তবুও সৃষ্টির সেরা জীব এর কাছে মাথানত করল একটি অবলা প্রাণী।

বিশ্ব মহামারী নভেল করোনার কারণে হাজার হাজার মানুষ মারা যাচ্ছে এর দোষ হয়তো আমাদের কারণ আমরা সৃষ্টির সাথে যে পাপ করছি তা আমরা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছি। ভারতের কেরল রাজ্য টি ৯৩% শিক্ষিত এবং তারা বামপন্থী ভাবধারায় বিশ্বাসী।বামপন্থীদের একটা কথা সবসময় কাজ করে সেটা হল মানুষ সমাজ জীব সবাইকে নিয়ে গড়ে ওঠা এই জগৎ। তবুও কেরলের মত বামপন্থী রাজ্যতে কিভাবে এটা হল? তাই বারবার প্রমাণ করে যে শিক্ষিত হলেই মানুষ হওয়া যায়না।আমাদের প্রকৃত শিক্ষা অর্জন করা উচিত যদি আমরা সেটা অর্জন করতে না পারি তাহলে আমরা অবলা প্রাণী দের সাথে ভালো ব্যবহার করতে পারব না।

তাই নিঃসন্দেহে বলা যায় মানুষের চেয়ে দ্বিতীয় ভয়ংকর প্রানী আর পৃথিবীতে নেই। এই মানুষ প্রাণীটি নিজেদের একটু সুখের জন্য পুরো বিশ্বকে গিলে খেতে পারে।

5 comments:

আপনার মতামত লিখুন

Powered by Blogger.